পাঁচমিশেলিরাজ্য বার্তা

পূর্ব বর্ধমানে রাজবাড়ির পুজোর সঙ্গে জড়িয়ে আছে ঐতিহ্য

নিউজ ডেস্ক: আজ থেকে প্রায় ৪০০ বছব আগে বর্ধমান রাজবাড়ীর খাস দেওয়ান ছিলেন পরমানন্দ রায়। রাজার সুনজরে পড়ায় তিনি কাঁকসার এক বড় অঞ্চলের জমিদারিত্ব পান। তখন তিনি সেখানে সমস্ত জঙ্গল কেটে বাড়ি বানিয়ে সেখানে থাকতে শুরু করেন। তিনিই সেখানে তৈরি করেন দুর্গামন্দির থেকে পুকুর, বাগান, সমস্ত কিছুই। পরবর্তীকালে এই বাড়ি কালিকাপুর রাজবাড়ি নামে খ্যাতি অর্জন করে। কিন্তু একটা সময়ে এখানে সাতজন ভাই মিলে একত্রে পুজো করতেন বলে সকলে এই পুজোটাকে সাত ভাইয়ের পুজো বলেই চেনে।

এখানে একটি আটচালা মণ্ডপে পুজো হয় যার তিনদিক ঘেরা। অতীতের সমস্ত রীতিনীতি মেনেই এখনও পুজো হয়ে থাকে এখানে। তবে কালের নিয়মে সেই জৌলুস হারিয়েছে। এখানে কৃষ্ণনবমীতে পাঁঠাবলি দিয়ে দেবীর বোধন করা হয় এই পুজোতে। এছাড়া পুজোর মধ্যেও তিনদিন বলি দেওয়ার প্রথা আছে এই বাড়িতে। ষষ্ঠী থেকে অষ্টমী পর্যন্ত বলি হয় এই রাজবাড়িতে। আগে অবশ্য নবমীতে বলি হতো, সেদিন মহিষ বলি দেওয়া হতো। কিন্তু বর্তমানে সেটা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

এই বাড়িতে একাধিক ছবির শ্যুটিং হয়েছে, এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল গয়নার বাক্স ও গুপ্তধন রহস্য। এমনকি খণ্ডহর ছবি যা মৃণাল সেন পরিচালনা করেছিলেন সেই ছবিরও শ্যুটিংও হয়েছিল। অভিনয় করেছিলেন নাসিরউদ্দিন শাহ, শাবানা আজমি। এই বাড়ির আনাচে কানাচে রয়েছে একাধিক ইতিহাস। পুজোর ক’টাদিন গ্রামের সমস্ত মানুষ এই পুজো দেখতে আসেন।

দুর্গাপুজোয় বোধন হয় পুজোর ১৩ দিন আগে। পুজোর তিন দিন হয় ছাগবলিও। পূর্ব বর্ধমানের কালিকাপুর রাজবাড়ির দুর্গাপুজোয় এ ধরনের বেশ কয়েকটি নিয়ম রয়েছে। প্রায় ৩৫০ বছর প্রাচীন এই পুজোর ঐতিহ্য আজও রয়ে গিয়েছে।

কর্মসূত্রে রাজ্যের বাইরে থাকলেও পুজোর সময় রায় পরিবারের সদস্যরা জড়ো হন কালিকাপুর রাজবাড়িতে। দুর্গাপুজোর প্রতি দিনই টেরাকোটার প্রাচীন একটি শিবের মূর্তি পুজো হয়। এই সপ্তমীর দিন কলাবৌকে চতুর্দোলায় করে স্নান করানো হয়।

রিপোর্টার শেখ আব্বাস আলী, পূর্ব বর্ধমান

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *