পাঁচমিশেলি

নব্য কবিদের নিয়ে গঠিত মৌমিতা সাহিত্য পরিষদের অনুষ্ঠান

নিউজ ডেস্ক: বাঙালি মনে কবিতার প্রভাব যে কতদূর বিস্তৃত তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। মনের আবেগকে সুন্দর ভাষায় উপস্থাপনা করার মাধ্যম দিয়ে বহু মানুষের হৃদয় জয় করেছে কবিতা। এবার নব্য কবিদের নিয়ে গত ৭ জানুয়ারি একটি সুন্দর আনন্দময় সন্ধ্যা অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছিল মৌমিতা সাহিত্য পরিষদ দমদম ক্যান্টনমেন্ট সুশীলা ভবন অনুষ্ঠান বাড়িতে।

মৌমিতা সাহিত্য পরিষদের পথ চলা আরম্ভ হয় সেই ২০১৯ সালে কোভিড সময়ে। এই পরিষদের প্রতিষ্ঠাতা মৌমিতা হালদার। ২০২১ সাল যখন আমরা সকলে ঘর বন্দী ছিলাম ঠিক তখনই একটি ভাবনার অধিকারী হয়েছিলেন মৌমিতা হালদার। তিনি ফেসবুকে একটি গ্রুপ খোলেন এবং যারা প্রতিভা নিয়ে অনেক কবিতা রচনা করেন যাদের নিজস্ব কোন জনপ্রিয়তা নেই তাদের হাত ধরে এগিয়ে নিয়ে আসেন এই যৌথ সম্মেলনে। তাঁর এই গ্রুপটির নাম দেওয়া হয় মৌমিতা সাহিত্য পরিষদ।

মৌমিতা হালদার বিয়ে করে নিজের শ্বশুর বাড়িতে আসার পর তার পরিচয় হয় জ্যাঠামনি গৌরাঙ্গ চন্দ্র হাওলাদারের সঙ্গে। তিনি একজন প্রতিভাবান চারণ কবি সাহিত্যিক। তাঁকে অনুসরণ করে মৌমিতা হালদারের পথ চলা শুরু। তিনি বিভিন্ন দেশ থেকে মহাদেশের কবিতা লিখে সম্মান অর্জন করেছেন এবং পুরস্কারে সম্মানিত হয়েছেন।

তাঁর তৈরি এই পরিষদের মধ্যে দিয়ে যৌথ সম্মেলনে ভারত তথা বাংলাদেশের সমস্ত প্রতিভাবান কবিদেরকে নিয়ে এই অনুষ্ঠানটি আয়োজিত হয়েছিল। এবং সকলকে সম্মানিত করা হয়। এদিন একটি ভিডিও কনফারেন্স এর মাধ্যম দিয়ে মৌমিতা সাহিত্য পরিষদের পক্ষ থেকে মনদিপ বইটির সংস্করণ হয় এবং সকলের সামনে আসে। এই ভিডিও কনফারেন্সে দেশ মহাদেশের বিভিন্ন প্রতিভাবান মানুষজনেরা উপস্থিত ছিলেন। ইউনাইটেড নেশন এর হিউমান রাইট স কাউন্সিল অফ আমেরিকার ভাইস প্রেসিডেন্ট ডক্টর এ বি এম কে ভাড়া প্রসাদ এবং হিউম্যান রাইটস প্রেসিডেন্ট অফ আমেরিকা ডক্টর রামকৃষ্ণ সাহ এছাড়াও আরো গণ্যমান্য ব্যক্তিত্বরা।

মৌমিতা হালদারের এই অপরূপ চিন্তা ভাবনা এক কথায় সকলের নজর কেড়েছে। এই সমস্ত কিছু নিয়ে এদিনের এই অনুষ্ঠান আলোকোময় হয়ে উঠেছিল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *