পাঁচমিশেলিমহানগর বার্তারাজ্য বার্তা

রেড রোডে দুর্গা পুজোর কার্নিভালের প্রস্তুতি তুঙ্গে

নিউজ ডেস্ক: পুজোর বেশ কিছু দিন আগে থেকেই রেড রোডে কার্নিভালের প্রস্তুতি শুরু হয়েছিল। মঙ্গলবার বিজয়া দশমী শেষ হতে না হতেই চূড়ান্ত তোড়জোড় শুরু হয়ে গিয়েছে। পূর্ত দফতরের উদ্যোগে তৈরি হচ্ছে অস্থায়ী গ্যালারি এবং চেয়ারের দর্শকাসন।

জানা গিয়েছে কলকাতার ১০০টি পুজো কমিটিকে কার্নিভালে অংশ নিতে জন্য আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। ২০২২ সালেও এই একই সংখ্যায় পুজো কমিটিকে অংশগ্রহণের সুযোগ দেওয়া হয়েছিল। শেষ মূহূর্তে একটি পুজো অংশ না নেওয়ায় ৯৯টি পুজো কার্নিভালে অংশ নেয়। নবান্ন সূত্রের খবর, এখনও পর্যন্ত সব পুজো কমিটিই কার্নিভালে অংশ নেবে বলে জানিয়েছে। তাই ১০০টি পুজো কমিটি ধরেই প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে।

শুক্রবার সকাল সাড়ে ১১টা থেকে বেলা ১২টার মধ্যে পুজো কমিটিগুলিকে রেড রোডের কাছাকাছি আসতে হবে। প্রতিটি পুজো সর্বাধিক তিনটি ট্রেলার বা ট্যাবলো নিয়ে যেতে পারবে। শোভাযাত্রায় সর্বাধিক ৫০ জনকে থাকার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। মুখ্যমন্ত্রীর জন্য কোনও উপহার আনতে বারণ করা হয়েছে।

এই বছর কার্নিভালের মঞ্চের উচ্চতা কম রাখা হয়েছে।কার্নিভাল উপলক্ষে দীর্ঘদিন পর মুখ্যমন্ত্রী বাড়ির বাইরে কোনও কর্মসূচিতে যোগদান করবেন। তাঁর পায়ের আঘাতের কথা ভেবে তাঁর বসার মঞ্চের উচ্চতা কম রাখা হচ্ছে।

বিকেল সাড়ে ৪টে থেকে শুরু কার্নিভাল। হেস্টিংসের দিক থেকে পুলিশ-প্রশাসনের নজরদারিতে একে একে রেড রোডে ঢুকবে পুজো কমিটির ট্যাবলোগুলি। রেড রোড হয়ে সেগুলি যাবে ইডেন গার্ডেন্সের দিকে। যাতে সহজে গঙ্গায় প্রতিমা নিরঞ্জন সম্ভব হয়। কোনও পুজো কমিটি চাইলে সেখান থেকে ট্যাবলো নিজেদের ঠিক করা ঘাটে বা এলাকায় নিয়ে যেতে পারবেন। সেই ব্যবস্থা করবে পুলিশ-প্রশাসনই।

গত বছর প্রায় ১৫ হাজার মানুষ রেড রোডের অস্থায়ী গ্যালারিতে বসে কার্নিভাল দেখেছিলেন। এ বার সেই আসনসংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। রেড রোড এলাকার বাইরেও বহু মানুষ কার্নিভাল দেখতে আসবেন বলে পুলিশ-প্রশাসনের অনুমান।

কলকাতা ও শহরতলির বাসিন্দাদের কার্নিভাল শেষে বাড়ি ফেরার জন্য ১৩টি বাস চালানো হবে। বাসগুলির গতিবিধি নিয়ন্ত্রণের দায়িত্বে থাকবে কলকাতা পুলিশ।কার্নিভাল দেখার পর দর্শকদের বাড়ির ফেরার জন্য কবি সুভাষ থেকে দক্ষিণেশ্বর রুটে মেট্রো পরিষেবা মধ্যরাত পর্যন্ত চালু রাখার আবেদন জানিয়েছে রাজ্য সরকার। মধ্যরাতে এসপ্ল্যানেড থেকে উত্তর ও দক্ষিণমুখী এক কিংবা দু’জোড়া বাড়তি রেক চালানো হতে পারে। হাওড়া এবং শিয়ালদহ থেকে শেষ লোকাল ট্রেনের সময়সীমা বাড়ানো বৃদ্ধির পরিকল্পনা রয়েছে রেলের। পূর্ব রেলের সঙ্গে আলোচনা চালাচ্ছে নবান্ন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *